রাজ্যে নতুন করে শুরু হলো কৃষক বন্ধু প্রকল্প পাবেন 10,000 টাকা, আবেদনের শর্ত কি জানুন সমস্ত খুঁটিনাটি বিবরণ

শেয়ার করুন প্রজন্ম ধরে, চাষাবাদ ভারতের সাংস্কৃতিক পরিচয়ের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। দক্ষিণে ধান থেকে শুরু করে উত্তরে গমের ক্ষেত, পূর্বে চা বাগান থেকে পশ্চিমে তুলার ...

krishak-bandhu-prakalpa-new-update
শেষ আপডেট:

প্রজন্ম ধরে, চাষাবাদ ভারতের সাংস্কৃতিক পরিচয়ের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। দক্ষিণে ধান থেকে শুরু করে উত্তরে গমের ক্ষেত, পূর্বে চা বাগান থেকে পশ্চিমে তুলার ক্ষেত পর্যন্ত প্রতিটি অঞ্চলই কৃষি দক্ষতার এক অনন্য চিত্র তুলে ধরে। অদম্য চেতনার সাথে, কৃষক যোদ্ধারা বছরের পর বছর শত বাধা বিপত্তির সত্ত্বেও চাষ করে সমগ্র জাতির ভরণপোষণের কাজ করে চলেছেন।

এই কৃষক যোদ্ধাদের আরও ক্ষমতায়ন এবং কৃষি বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করার লক্ষ্যে একটি বৈপ্লবিক উদ্যোগ হলো কৃষকবন্ধু প্রকল্প। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে 2019 সালে চালু হওয়া এই কৃষক বন্ধু প্রকল্প লক্ষ লক্ষ কৃষকদের আসার বাতিঘর হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পের মাধ্যমে নথিভুক্ত চাষিরা 2 লক্ষ টাকা পর্যন্ত জীবন বীমা পেতে পারে। এছাড়াও বছরের নির্দিষ্ট খারিফ এবং রবি মরসুমের চাষের জন্য কৃষক 5000 থেকে 10,000 টাকার সাহায্য দেওয়া হয়। কিভাবে এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে হয়, আবেদনের জন্য শর্ত কি কি আছে, নথিপত্র কি কি লাগে, সুবিধা কি কি পাওয়া যায়, ইত্যাদি সমস্ত তথ্য নিচের প্রতিবেদনে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো।

আরও পড়ুন:
কৃষক বন্ধু প্রকল্প

রাজ্যের কৃষকদের সহায়তা করার জন্য কৃষক বন্ধু প্রকল্প হলো একটি ব্যাপক কল্যাণমূলক প্রকল্প। কৃষি ব্যবস্থাকে উন্নত করার দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে চালু হওয়া এই কর্মসূচির লক্ষ্য কৃষকদের জন্য আরও একটি উন্নত পথ তৈরি করা। এর প্রাথমিক উদ্দেশ্য কৃষক এবং তাদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা এবং সামাজিক নিরাপত্তা প্রদান করা।

1 লা ফেব্রুয়ারি 2019 সালে থেকে এই প্রকল্পের মাধ্যমে রাজ্যের সমস্ত কৃষকদের আর্থিক সহায়তা দেওয়া শুরু করা হয়। তবে মুখ্যমন্ত্রী এই প্রকল্পটি পুনরায় নতুন আয়োজনে চালু করার সিদ্ধান্ত নেন এবং 17 ই জুন 2021 সালে মুখ্যমন্ত্রী নতুন কৃষক বন্ধু প্রকল্পটি ঘোষণা করেন। যার অধীনে কৃষকদের দেওয়া আর্থিক সাহায্য দ্বিগুণ করা হয়েছে।

পূর্বে কৃষকরা প্রতি বিঘা বা তার বেশি জমির জন্য প্রতি বছর 5000 টাকা পেতেন। এখন কৃষকরা তার সুবিধা দ্বিগুণ করে বছরে 10,000 টাকা পাবে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রায় ৬৮ লক্ষ কৃষক উপকৃত হয়েছেন।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পের উদ্দেশ্য
  • কৃষক বন্ধু প্রকল্পের মূল লক্ষ্য কৃষকদের আর্থিক বোঝা কমানো, প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে তাদের স্থিতিস্থাপকতা নিশ্চিত করা এবং কৃষি অগ্রগতিকে উত্সাহিত করা।
  • প্রকল্পটি কৃষকদের আর্থিক স্থিতিশীলতা বাড়ানোর জন্য সরাসরি বার্ষিক সহায়তা প্রদান করতে চায়।
  • কর্মশালা এবং প্রশিক্ষণ কর্মসূচির মাধ্যমে কৃষকদের মধ্যে সচেতনতা ও জ্ঞান প্রচার করা।
  • কৃষক বন্ধু প্রকল্পের লক্ষ্য কৃষকের মৃত্যুর ক্ষেত্রে কৃষকদের পরিবারকে আর্থিক সহায়তা প্রদান করা।
কৃষক বন্ধু প্রকল্পের সুবিধা
  • কৃষক বন্ধু নতুন প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকরা বার্ষিক সর্বোচ্চ 10,000 টাকা এবং সর্বনিম্ন 4,000 টাকা পেতে পারেন। রবি ঋতু, গ্রীষ্ম ঋতু বা খরিফ ঋতুর জন্য এই পরিমাণটি 5,000 টাকা বা 2,000 টাকার দুটি কিস্তিতে বিতরণ করা হবে। এই টাকা সরাসরি কৃষকের অ্যাকাউন্টে স্থানান্তর করা হবে।
  • 8 থেকে 60 বছর বয়সী কোনো কৃষকের বন্ধু মারা গেলে তাদের পরিবার 2,00,000 টাকা এককালীন অর্থপ্রদান পাবে।
  • কৃষক বন্ধু প্রকল্পে নাম নথিভুক্ত থাকলে সরকারের কাছে ভালো দামে ধান বিক্রি করার সুবিধা রয়েছে। এরজন্য অবশ্য epaddy.wb.gov.in এই ওয়েবসাইটে গিয়ে রেজিষ্ট্রেশন করতে হবে।
কৃষক বন্ধু প্রকল্পে আবেদন করার শর্ত
  • আবেদনকারী কৃষকের নিজের নামে জমির দলিল বা পর্চা থাকতে হবে। অথবা জমির নিবন্ধীকরণের নথি বা পাট্টা বা বনবিভাগের পাট্টা থাকলেও আবেদন করতে পারবেন।
  • আবেদনকারী কৃষকের সঠিক পরিচয়পত্র যেমন ভোটার কার্ড, আধার কার্ড থাকতে হবে।
  • কৃষকদের নিজস্ব ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট নাম্বার থাকতে হবে। পাশাপাশি সেই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সাথে আধার কার্ড নম্বর লিংক থাকতে হবে।
  • আবেদনকারী কৃষকের একটি চালূ মোবাইল নাম্বার থাকতে হবে, যেখানে পরবর্তীতে প্রকল্প সম্পর্কিত সমস্ত আপডেট আসবে।
  • কোনও কৃষকের যদি নিজের নামে জমি না থাকে, তাহলে দলিল বা দানপত্র বা অন্যান্য নথি সঙ্গে স্বঘোষণাপত্র ও পঞ্চায়েত প্রধানের দেওয়া ওয়ারিশন সার্টিফিকেট জমা করেও আবেদন করতে পারবেন।
কৃষক বন্ধু প্রকল্পে আবেদন পদ্ধতি

এই কৃষক বন্ধু প্রকল্পে আবেদন করার জন্য প্রথমে কৃষক বন্ধু নতুন প্রকল্প ফর্ম টি সমস্ত তথ্য দিয়ে ভালো করে পূরণ।

আপনাদের সকলের সুবিধার জন্য নিচে কৃষক বন্ধু প্রকল্পের আবেদনফর্মের লিংক দেওয়া হল সেখান থেকে সহজেই ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

আবেদন ফরমটি ভালো করে পূরণ করে তার সঙ্গে সমস্ত ডকুমেন্টস ও নিজের পাসপোর্ট সাইজ ছবি যোগ করে জমা করতে হবে।

ফর্ম নিকটবর্তী কৃষি অফিসে কিংবা দুয়ারে সরকার ক্যাম্পে জমা করতে পারবেন। এছাড়াও কৃষি অফিস বা দুয়ারে সরকার ক্যাম্প থেকেও ফর্ম সংগ্রহ করতে পারবেন।

Application Form

Official Website

কৃষক বন্ধু প্রকল্প সর্বপ্রথম কে, কবে চালু করেন?

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে 2019 সালের জানুয়ারি মাসে কৃষি বিভাগ, সরকার পশ্চিমবঙ্গে “কৃষকবন্ধু” প্রকল্প চালু করেছে। তবে সম্প্রতি এই স্কিমটি পুনঃনির্মাণ করা হয়েছে এবং “কৃষক বন্ধু (নতুন)” হিসাবে পুনঃনামকরণ করা হয়েছে। নতুন প্রকল্পটি 17 জুন 2021 তারিখে চালু হয়েছিল।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে কত টাকা পাওয়া যায়?

কৃষক বন্ধু নতুন প্রকল্পের মাধ্যমে কৃষকরা বার্ষিক সর্বোচ্চ 10,000 টাকা এবং সর্বনিম্ন 4,000 টাকা পেতে পারেন।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে কখন টাকা দেওয়া হয়?

কৃষক বন্ধু প্রকল্পের টাকা দুই কিস্তিতে পাঠানো হয়। রবি মরশুম ও খারিফ মরশুমে এই টাকা পাঠানো হয়।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে টাকা কীভাবে চেক করতে হয়?

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে নাম উঠেছে কি না তা চেক করার জন্য কৃষক বন্ধু প্রকল্পের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে আসতে হবে। এরপর নথিভূক্ত কৃষকের তথ্যে ক্লিক করে ভোটার কার্ড নাম্বার বসিয়ে দিয়ে স্ট্যাটাস চেক করতে পারবেন।

কৃষক বন্ধু প্রকল্পে মৃত্যু জনিত সহায়তা কিভাবে পাওয়া যায়?

কৃষক বন্ধু মৃত্যুজনিত সহায়তা পেতে হলে কৃষকের নাম কৃষক বন্ধু প্রকল্পে নথিভুক্ত থাকতে হবে। পাশাপাশি 18 থেকে 60 বছরের মধ্যে কোনো কৃষক বন্ধুর মৃত্যু হলে তার পরিবার এককালীন 2 লক্ষ টাকা পেয়ে যাবেন। এরজন্য নিকটবর্তী কৃষি অফিসে গিয়ে আবেদন ফর্ম সংগ্রহ করে ডকুমেন্টস সহকারে জমা করতে হবে।

  আমাদের হোয়াটস্যাপ চ্যানেল